1. te@ea.st : 100010010 :
  2. rajubdnews@gmail.com : admin :
  3. ahamedraju44@gmail.com : Helal Uddin : Helal Uddin
  4. nrbijoy03@gmail.com : Nadikur Rahman : Nadikur Rahman
  5. shiningpiu@gmail.com : Priyanka Islam : Priyanka Islam
  6. admin85@gmail.com : sadmin :
শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ :
ঝিনাইদহে নামাজে ইকামত দেওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৫ কুষ্টিয়ায় ক্যানুলা খুলতে গিয়ে নবজাতকের বৃদ্ধাঙ্গুল কেটে ফেললেন নার্স দোয়ারাবাজারে ডিবি পুলিশের অভিযানে ৯০০ কেজি ভারতীয় চা পাতাসহ ব্যাবসায়ী গ্রেফতার আখাউড়ায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উদ্যোগে বাল্য বিবাহ বন্ধ। কাপ্তাই তথ্য অফিস নৌযানে করে মাইকে প্রচার প্রচারণা সমর্পিত আত্ম উপলব্ধি …. মোহাম্মদ হাসানুর রহমান ছাতা মেকার সোহাগের ব্যবসায় ধ্বস, সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন দোয়ারাবাজারে বিপুল পরিমান বিদেশী মদসহ এক নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক কাউখালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক বৃদ্ধের মৃত্যু কালকিনিতে পূর্বশত্রুতার জেরে কুঁপিয়ে শরীর থেকে পা বিছিন্ন করল প্রতিপক্ষ

খেলোয়াড়ি জীবন শেষে কী করবেন রুনি?

প্রতিবেদকের নাম :
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৮

খেলাধুলা ডেস্ক: আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তর্জাতিক ফুটবলকে গুডবাই বলে দিয়েছেন বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার ওয়েনি রুনি। অবশ্য তিনি আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানিয়েছিলেন ২০১৭ সালে। কিন্তু গত ১৫ নভেম্বর ওয়েনি রুনিকে বিশেষভাবে সম্মান জানিয়ে বিদায়ী সংবর্ধনা দেয় ইংল্যান্ড। যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচ খেলার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে অবসরে যান রুনি। এই ম্যাচে ইংল্যান্ড জয় পায় ৩-০ গোলে। কিন্তু রুনি গোল করতে পারেননি।

এই ম্যাচে গোল করতে না পারলে কী হবে? রুনি তো ইংল্যান্ডের ফুটবল ইতিহাসে সর্বকালের সেরা গোলদাতা। ইংল্যান্ডের এই সাবেক অধিনায়ক ১২০টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ৫৩টি গোল করেছেন। সাবেক এই ইংলিশ ফরোয়ার্ড আউটফিল্ড প্লেয়ার হিসাবে ইংল্যান্ডের হয়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ম্যাচ খেলেছেন। আর সবমিলিয়ে দ্বিতীয়। ইংল্যান্ডের হয়ে যিনি সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন তিনি হচ্ছেন পিটার শিলটন। তবে তিনি ছিলেন গোলরক্ষক। ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে ১২৫টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। গোল করার দিক থেকে ওয়েনি রুনির পরে আছেন ববি চার্লটন। ১০৬ ম্যাচ খেলে তিনি করেন ৪৯ গোল। ৪৮ গোল করে গ্যারি লিনেকার আছেন চতুর্থ অবস্থানে।

রুনি শুধু ইংল্যান্ডেরই সর্বকালের সেরা গোলদাতা নন। তিনি ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডেরও সর্বকালের সেরা গোলদাতা। এই ক্লাবের হয়ে তিনি গোল করেছেন ২৫৩টি। এখানেও রুনির নিচে আছেন ববি চার্লটন। তার গোল সংখ্যা ২৪৯। ২৩৭ গোল করে তৃতীয় অবস্থানে আছেন ডেনিস ল। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ঝলমলে ক্যারিয়ার রুনির। মাইকেল ক্যারিকের পাশাপাশি রুনি একমাত্র ইংলিশ ফুটবলার হিসাবে প্রিমিয়ার লিগ, এফএ কাপ, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, লিগ কাপ, উয়েফা ইউরোপা লিগ ও ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ জিতেছেন। ২০০৯-১০ মৌসুমে পিএফএ প্লেয়ার্স প্লেয়ার অব দ্য ইয়ার ও এফডব্লিউএ ফুটবরার অব দ্য ইয়ার নির্বাচিত হয়েছিলেন।

ওয়েনি রুনির আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শেষ হলেও ক্লাব ফুটবলে তিনি খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন। খেলছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্লাব ডিসি ইউনাইটেডের হয়ে। রুনি পুরোপুরিভাবে যখন বুট জোড়া তুলে রাখবেন তখন কী করবেন? কোচিংয়ে যুক্ত হবেন না টিভি পন্ডিত হিসাবে কাজ করবেন? তবে রুনি জানিয়ে রেখেছেন, তিনি পুরোপুরিভাবে খেলোয়াড়ি জীবন শেষ করার পর ক্যারিয়ার হিসাবে কোচিংকেই বেছে নিবেন।

রুনি বলেছেন, ‘হ্যাঁ, কোচিংয়ের প্রতিই আমার ঝোঁক আছে। অবসরের পর কোচ হিসাবেই ক্যারিয়ার শুরু করতে চায়। আমি এখন যুক্তরাষ্ট্রে খেলছি। অবশ্যই আমাকে খেলোয়াড়ি জীবন শেষ করতে হবে। আশা করি, আমি ইংল্যান্ডে ফিরে আসার আগে তাদের (ডিসি ইউনাইটেড) পরিপূর্ণ করতে পারব। সেই সাথে আমি নিজেকে এমন একটা অবস্থানে নিয়ে যেতে পারব যেখানে প্রস্তাব পেলে আমি গ্রহণ করতে পারব অথবা না করে দিতে পারব।’

টিভি পন্ডিত হিসাবে কাজ করার সম্ভাবনার কথাও একেবারে উড়িয়ে দেননি ৩৩ বছর বয়সী রুনি। তিনি বলেছেন, ‘যদি কোচিংয়ে ক্যারিয়ার গড়তে না পারি তাহলে অবশ্য টেলিভিশনে কাজ করার সুযোগ থাকবে। কিন্তু আমার প্রথম পছন্দ কোচিং অথবা ম্যানেজমেন্ট।’

একেবারে ছোটবেলা থেকেই ফুটবলের সঙ্গে জড়িত ওয়েনি রুনি। তার বয়স যখন মাত্র ৯ বছর তখন তিনি ইংলিশ ক্লাব এভারটনের ইয়ুথ টিমে যোগ দেন। ২০০২ সালে তার এভারটন সিনিয়র টিমে অভিষেক হয়। ২০০৩ সালে আন্তর্জাতিক ফুটবলে অভিষেক হয়েছিল তার। এই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরেছিল ইংল্যান্ড। রুনির যেদিন ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে অভিষেক হয়েছিল তখন তিনি ছিলেন সবচেয়ে কম বয়সে আন্তর্জাতিক ফুটবলে অভিষেক হওয়া ইংলিশ ফুটবলার। কিন্তু পরবর্তীতে এই রেকর্ড ভেঙেছে। রুনিকে টপকে এই রেকর্ড এখন থিও ওয়ালকটের দখলে। রুনি আছেন দ্বিতীয় অবস্থানে।

ইংল্যান্ডের হয়ে সবচেয়ে কম বয়সে গোল করার রেকর্ড এখনো ওয়েনি রুনির দখলে। ১৭ বছর ৩১৭ দিন বয়সে গোল করে এই রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি। এই তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছেন মাইকেল ওয়েন। তিনি গোল করেছিলেন ১৮ বছর ১৬৪ দিন বয়সে। ১৮ বছর ২০৯ দিন বয়সে গোল করে তৃতীয় অবস্থানে আছেন মার্কাশ রাশফোর্ড।

ইংল্যান্ডের হয়ে ওয়েনি রুনির ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স ভালো। আবার ক্লাব ফুটবলেও তিনি আলো ছড়িয়েছেন। ক্লাবের হয়ে তিনি অনেক শিরোপা জিতেছেন। তবে ইংল্যান্ডকে বড় কোনো শিরোপা জেতাতে পারেননি তিনি। তার সময় বড় কোনো ইভেন্টে সর্বোচ্চ কোয়ার্টার ফাইনালের উপরে খেলতে পারেন ইংল্যান্ড। তার সময়ে সর্বশেষ ২০১২ সালে ইউরো কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছিল ইংলিশরা।

এ বিষয়ে ওয়েনি রুনি বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডের হয়ে আমি যখন খেলেছি তখন সব উজাড় করে দিয়েছি। দলের সফলতার জন্য আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। কিন্তু কখনো কখনো সর্বোচ্চটুকু দেয়াও যথেষ্ট নয়।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
2019 All rights reserved by |Dainik Donet Bangladesh| Design and Developed by- News 52 Bangla Team.
Theme Customized BY News52Bamg;a