সর্বশেষ সংবাদ
Home / অন্যান্য / নাস্তিকদের পরাজয় ও আমাদের করনীয়– মুহাম্মদ আজিজুর রহমান

নাস্তিকদের পরাজয় ও আমাদের করনীয়– মুহাম্মদ আজিজুর রহমান

নাস্তিকতা সারা পৃথিবীর একটি সাধারণ বিষয়। পৃথিবীর কোন দেশেই ওদের মূল্য নেই । আবেগী বাঙ্গালী জাতি নিয়ে ওরা মজা করে আমাদের আবেগ নিয়ে ছিনিমিনি খেলে। পৃথিবীর অন্য দেশের নাস্তিকদের সাথে বা তাদের মতবাদের সাথে আমাদের দেশের নাস্তিক ও তাদের মতবাদের কোন মিল আপনি পাবেন না ।

নাস্তিক বাদের প্রধান কথা হল সৃষ্টিকর্তা বলে কেউ কেই , পরকাল বলে কিছু নাই ,পৃথিবী জাগতিক ভাবে সৃষ্টি হয়েছে এবং জাগতিক ভাবেই এর বিনাশ হবে। এই মূল বিষয়কে সামনে রেখে পৃথিবী ব্যাপি নাস্তিকরা যে কোন ধর্মের বিষোধগার করে।  যুক্তি ও বিজ্ঞান দ্বারা সব কিছুকে তারা প্রকাশ করে যদিও তার ভেতরে ভ্রান্তিই বেশী। আমাদের দেশের নাস্তিকদের আবার উল্টো সুর । ইসলামের সমালোচনা , মুসলিমদের বিভিন্ন দোষ ও ধর্ম অবমাননাকে নাস্তিকবাদের মূল এজেন্ডা বানিয়ে এই দেশকে অন্ধকারের গভীরে নিয়ে যেতে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের নাস্তিকদের একমাত্র আক্রমনের বিষয় ইসলাম এবং এর মূল কারণ এই কাজটি করে কেউ বিদেশে যেতে পারছে আবার কেউ ভিনদেশী গোয়েন্দা সংস্থার কাছ থেকে মাসিক ভাতা পেয়ে থাকে ।
নাস্তিকরা সব সময় বলে থাকে তারা যুক্তি ও বিশ্বাসের মাধ্যমে সব কিছু করে থাকে। সৃষ্টিকর্তার কোন অস্তিত্ব যদি কেউ প্রমান করতে পারে তাহলে তারা আস্তিকে ফিরে আসবে । বাস্তব সত্য তাদের যতই আপনি যুক্তি ও বিজ্ঞান দিয়ে বোঝান তারা কিছুই বুঝবে না । তারপরেও আমরা যুক্তি ও বিজ্ঞান দিয়েই তাদের সাথে লড়াই করে যাবো ।

ইসলাম পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বিজ্ঞান সম্মত ধর্ম । ইসলামের কিছু বিষয় বিশ্বাসের সাথে জড়িত বাকী সব বিষয়কে যুক্তি ও বিজ্ঞান দ্বারা ব্যাখ্যা করা সম্ভব। ইসলামিক স্কলাররা প্রতিনিয়ত বিজ্ঞান ও যুক্তি দিয়ে নাস্তিকবাদের পতন ঘটাচ্ছে । এক সময় মনে হত নাস্তিকরা বুঝি পৃথিবীটা গিলে খাবে কিন্তু
পরিসংখ্যানে দেখা যায় সমগ্র পৃথিবীর ৩% সৃষ্টিকর্তায় বিশ্বাস করে না । এমন অনেক নাস্তিক দেখা যায় যারা বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করে আবার আস্তিকতায় ফিরে আসে।
নাস্তিকরা কৌশল অবলম্বন করে । যেহেতু তাদের উদ্দেশ্য আগে থেকে ঠিক করা তাই তাদের কৌশল নির্ধারণ করা সহজ হয়। এরা খুব ভালো করে জানে সাধারণ মুসলিমরা পবিত্র কোরআন , আল্লাহ , হযরত মুহাম্মদ (সঃ) সর্ম্পকে কুরুচিপূর্ন কথা বললে খেপে যাবে তাই তারা এই কাজ গুলো বেশী করে। সাধারণ মুসিলমরা তখন যুক্তি দিয়ে তাদের জবাবের পরিবর্তে কোন কোন সময় সহিংস আচরণ করে তখনই নাস্তিকতার প্রচার বেশী পায়। নাস্তিকদের সব প্রশ্নের জবাব আছে এবং মুসলিম স্কলাররা প্রতিনিয়ত তা দিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশে গুটি কয়েক নাস্তিক বছরের পর বছর একই কথা বলছে। ওদের অনুসারী সংখ্যা একেবারেই কম।

অন্য দিকে দেশে যাত্রা পালা বন্ধ হয়েছে , নাচ গানের আসর প্রায় বন্ধ , অশ্লীল সিনেমা বন্ধ । সাধারণ মানুষ মসজিদমুখী এটা ওদের ভালো লাগে না । ওয়াজ মাহফিলে লক্ষ লক্ষ মানুষের সমাগম ওদের রক্তকে শীতল করে দেয় । সালামের ভূল উচ্চারণ এবং অপব্যাখ্যার যে সমুচিত জবাব যুবক ভাইয়েরা দিয়েছে তাদের নাস্তিকরা চরমভাবে বিভ্রান্ত। বাংলাদেশের পবিত্র মাটি ওদের জন্য অপবিত্র হয়ে গেছে । আজকে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট একটু ভালো ভাবে লক্ষ করলে দেখা যায় লক্ষ লক্ষ যুবক যারা কোন রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত না অথচ ইসলামের জন্য ফাইট দিচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ
মাধ্যমে নাস্তিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের যুক্তি ও বিজ্ঞান সম্মত জবাব তারাই দিচ্ছে। হাজার হাজার যুবক ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় নিয়েছে এর থেকে ভালো কিছু আর কি হতে পারে ।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাজারো ছেলে-মেয়ের কথা শুনতে পাচ্ছি যারা বলছে আমরা ইসলামের বিধি বিধান হয়ত ঠিক মত পালন করতে পারি না তার মানি কেউ ইসলামের কটুক্তি করবে তাকে ছেড়ে কথা বলবো এমন নয় । এই যে বিপ্লব এই যে সামাজিক আন্দোলন এর সাথে
কত ভাগ মাদ্রাসার ছাত্র জড়িত। আমি মনে করি বাংলাদেশে নাস্তিকতার প্রসার ঘটেনি বরং ভেতরে ভেতরে ইসলামের বিপ্লব হয়ে গেছে।

এই যে যুব সমাজ, তাদের কে সঠিক শিক্ষার দিকে টেনে নিয়ে যেতে হবে । ধর্ম ও দেশ প্রেমের শিক্ষা দিতে হবে । নীতি ও নৈতিকাতার শিক্ষা দিতে হবে।
অনেক নাস্তিকের মুখে শুনেছি যুব সমাজের কি হলো সারাদিন ওয়াজ শুনে আর জিনসের প্যান্ট পরে মসজিদে দৌড়ায় । নাস্তিকদের পরাজয় হয়ে গেছে এখন যদি আমি বা আপনি কোন ভূল করি তাহলেই ওরা আবার সুযোগ করে নিবে ।

নাস্তিকদের কোন উস্কানীতে পা দেওয়া যাবে না । তাদের সব কিছুর জবাব আমরা দেবো শিক্ষা , যুক্তি ও বিজ্ঞানের মাধ্যমে। ধর্ম অবমাননা করলে সরকারের সাহায্যে চাইব , পুলিশের সহযোগিতা নেবো , সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে প্রতিরোধ করবো কিন্তু কোন মতেই সহিংস হওয়া যাবে না।

পৃথিবীর কত বড় বড় নাস্তিকের পতন দেখেছি , কত বড় শক্তিধর রাষ্ট্রের পতন দেখেছি সেখানে আমাদের দেশের কিছু নেরী কুত্তা, বেশ্যাদের ঘেউ ঘেউ আওয়াজে আমরা যেন সহিংস না হই । নাস্তিকদের চ্যালেঞ্জ করছি তোদের যত যুক্তি , বিশ্বাস , বিজ্ঞান আছে সব কিছুর জবাব যুক্তি , শিক্ষা, বিশ্বাস ও বিজ্ঞান দ্বারাই দেবো ইনশাআল্লাহ ।

লেখক ও কলামিস্ট ।
মুহাম্মদ আজিজুর রহমান।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে মোবাইল চার্জ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে কিশোরের মৃত্যু

এইচ অার রুবেল হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি : বানিযাচংয়ে মোবাইল চার্জ করতে গিয়ে ...