1. te@ea.st : 100010010 :
  2. rajubdnews@gmail.com : admin :
  3. ahamedraju44@gmail.com : Helal Uddin : Helal Uddin
  4. nrbijoy03@gmail.com : Nadikur Rahman : Nadikur Rahman
  5. shiningpiu@gmail.com : Priyanka Islam : Priyanka Islam
  6. admin85@gmail.com : sadmin :
শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ১২:২৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ :
মেহেরপুরে করোনায় দুজনের মৃত্যু কাপ্তাইয়ের রাইখালীতে যৌথ বাহিনীর অভিযানে অস্ত্রসহ ১ জন আটক ঝিনাইদহে করোনা সংক্রমণ রোধে জেলা প্রশাসনের বিধিনিষেধ জারি হে কাপ্তাই তুমি রয়েছ মনের গহীনে নিরবে নিভৃতে” স্মৃতির অ্যালবামে ভান্ডারিয়ায় আনারশ মার্কার নির্বাচনী কার্যালয়ে দুর্বৃত্তের আগুন মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত নাজমা কে বাঁচাতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন যশোরের শার্শায় ২৫টি গৃহহীন পরিবার পেলো নতুন ঠিকানা নিয়তির মুচকি হাসি—-মৌসুমী জামান কাপ্তাইয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা ব্যুরোর করোনা সচেতনতামূলক সড়ক প্রচারণা ছাত্রনেতা বিপ্লবের মৃত্যুতে কাউখালীতে বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ

রাজনীতিতে নীতিহীনতা ও ধর্মীয় উপাখ্যান–মুহাম্মদ আজিজুর রহমান।

প্রতিবেদকের নাম :
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১

মুহাম্মদ আজিজুর রহমান।

বাংলাদেশে প্রায় ৯০% মুসলিম তাই রাজনীতিতে ধর্ম একটি বড় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করার কথা কিন্তু বাস্তবতা হলো বাংলাদেশের রাজনীতিতে ধর্ম ভিত্তিক কোন দল কখনই মাথা তুলে দাড়াতে পারেনি। নীতিহীনতার এই দেশে কম বেশী সবার মধ্যেই লোভী একটা চরিত্র গড়ে উঠেছে সেখানে আদর্শ বলতে যা বুঝায় তা নেই বললেই চলে । ইসলামী রাজনীতি কখনই বাংলাদেশের মূল ধারার রাজনীতি স্থান করে নিতে পারেনি। ইসলামী রাজনীতি দেশে সে ভাবে দাড়াতে পারেনি তার বিভিন্ন কারণ ছিল। ইসলামী রাজনীতির পুরোধা সেই জামায়াত ইসলামীর বিরুদ্ধে আছে যুদ্ধপরাধের অভিযোগ, সেই সাথে আছে মওদুদীবাদের তকমা। জামাতী আফিম কোন কালেই কোন সত্যিকারের আলেম যেমন গ্রহণ করেনি তেমনি বাংলাদেশের সাধারণ জনগনও গ্রহণ করেনি। অল্প সময়ের মধ্যে হেফাজত ইসলাম সাধারণ মানুষের সেই দাবীকে অনেকাংশে পুরুন করতে সক্ষম হলেও হাল আমলে যে স্টিম রোলার চলছে তাতে টিকে থাকাই মুশকিল। নতুন কমিটি গঠন করেও হেফাজত টিকে থাকবে কিনা সন্দেহ । নীতি ও আদর্শের যে লড়াই সেখানে আঘাত আসবে। শুরু থেকে আজ অবধী হেফাজতের যে কমিটি তা যদি পর্যালোচনা করি তাহলে এ কথা স্বীকার করতেই হবে সেখানে অনেক মোনাফেক ও নীতিহীন মানুষের সমন্বয় ঘটেছিল। নীতিহীনতার কেনা বেচার হাটে হেফাজত কি রাজনীতির গুটি হিসেবে ব্যবহৃত হবে না নিজেরাই শক্ত অবস্থান তৈরি করতে সক্ষম হবে তা ভবিষ্যতই বলে দিবে।

আপনি যদি কোরআনের কথা বলেন ,হাদীসের কথা বলেন , খেলাফত কায়েম করতে চান কোন সমস্যা নেই । কিন্তু যখন আপনি এ সব কথা বলবেন সেই সাথে বহাল তবিয়তে থাকবেন তখনই মনে করবেন ভেতরের ঘটনা অন্যরকম। কোন কিছু পাওয়ার জন্য হম্বি তম্বি করছেন। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন কোন নজির নেই যে ইসলামের কথা বলে ফুল বিছানায় থাকতে পেরেছে। তাই আপনি যখন বড় নেতা হয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের সামনে ইসলামী হুকুমত কায়েমের কথা বলে রাতে বাসায় ঘুমাতে পারেন তাহলে বুঝতে হবে আপনি চরম ভাগ্যবান একজন মানুষ। এ দেশে ইসলামের শত্রুু কারা এটা বের করা খুব কঠিন। তবে কিছু চিহিৃত শত্রুু আছে যারা তাদের আচার আচরণ কথা বার্তা দ্বারা আপনাকে তা বুঝিয়ে দেবে। আপনি তাদের সর্ম্পকে সচেতন হবেন।

আবার এমন অনেকে আছেন একেবারে পাক্কা ইসলাম প্রিয় ব্যক্তি। তাদের কথাবার্তা, চাল, চলন সবই সুন্নতী তরিকার আসলে মস্ত বড় মোনাফেক। এ ধরনের মোনাফেকের সংখ্যাও দেশে কম নয়। এরাই মূলত ইসলামের সবচেয়ে বড় শত্রুু। বাংলাদেশে কাকে আপনি ইসলামী রাজনীতির আদর্শ মানবেন। প্রতিটা দলই তাদের মতবাদ জাহির করার জন্য ব্যস্ত। যাকে আপনি নেতা মানবেন সে দেখবেন রাতের অন্ধকারে কারো সাথে আপোষ করছে, নিজের আখের গোছাতে কর্মীদের গুলির সামনে , রক্তে আগুন ধরিয়ে পালিয়ে যাবে । সাধারণ মানুষ গুলি খেয়ে রাস্তায় পরে থাকবে , খোজ নেওয়ারও কেউ থাকবে না সাথে জঙ্গি আখ্যা দিয়ে গোটা দশেক মামলা খাবেন । সবাই জানে কে কত টাকা, কি সুবিধার জন্য বিক্রি হয়ে যেতে পারে। ঈমানদীপ্ত নেতার বড় অভাব এই দেশে।

ইসলামের ইতিহাস আমাদের কি শিক্ষা দেয়, সেই রাসুল (সঃ) জমানা থেকে আজ অবধী ঈমানদার নেতা বা শাসক ছাড়া কোনদিন কোন কালে কোন জায়গায় ইসলাম না প্রতিষ্ঠিত হয়েছে না বিজয়ী হয়েছে ।

বর্তমান ইসলামী নেতৃত্ব দিয়ে যদি চলমান সমস্যার সমাধান খুজি তাহলে বলব আমাদের মত বেকুব বাংলাদেশে আর একটিও নেই। বাংলাদেশে সঠিক কোন ইসলামী আদর্শ ও দল গড়ে উঠেনি। এমন কোন ব্যাক্তি বা দল আমাদের আস্থা অর্জন করতে পারেনি যাদের উপর ভরসা করা যায়। গত কয়েক যুগের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে সহজেই অনুমেয় যে বাংলাদেশের রাজনীতিতে নীতি, নৈতিকতা, আদর্শ বলতে কিছু নেই। রাজনীতি,সমরনীতি, নীতিকথা, নীতিবাক্য সব কিছুর কেন্দ্রবিন্দু হল ক্ষমতা।

ক্ষমতাকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হচ্ছে বাংলাদেশের রাজনীতি। এখানে ইসলাম, ধর্ম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সব কিছুই ক্ষমতা কেন্দ্রিক। নীতি ও আদর্শ বলতে আসলে কিছু নেই। চেতনা, ফেতনা আসলে লোক দেখানো বুলি। সামনে হয়ত আরো খেলা দেখতে পাবেন। রাজনীতিবিদরা সব সময় বলে রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই আসলে এটা বলেই ওরা নিজেদের বিবেক বুদ্ধিকে বিক্রি করাকে জায়েজ করে নিয়েছে।

চিরদিনের স্বৈরাচার হয়ে যায় আজীবনের বন্ধু, গনতন্ত্রবাদীরা স্বৈরাচারের মত আচরণ করে, বামপন্থিরা ডানের সাথে মিলিত হয় । ইসলামপন্থিরা ক্ষমতা পেতে নীতি ও আদর্শ ত্যাগ করে বারবার মার খায় তবুও হুশ ফেরে না। একদল মার খায় অন্য দল হাত তালি দেয় বেকুবের দল বোঝে না এরপরে কার পালা ।

লেখক ও কলামিস্ট ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
2019 All rights reserved by |Dainik Donet Bangladesh| Design and Developed by- News 52 Bangla Team.
Theme Customized BY News52Bamg;a