1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : News 52 Bangla : Nurul Huda News 52 Bangla
সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৫৬ অপরাহ্ন

এশিয়া মহাদেশের বৃহৎ কৃত্রিম কাপ্তাই হ্রদটি পানি পূর্ণ হচ্ছে

প্রতিবেদকের নাম :
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১

কাপ্তাই প্রতিনিধি,

এশিয়া মহাদেশের বৃহৎ কৃত্রিম রাঙ্গামাটি কাপ্তাই হ্রদ টি দীর্ঘ তিন মাস পানি শুন্যতার কারনে বর্তমানে বর্ষনের ফলে পানি ভরাট হতে শুরু করছে।

শুস্ক মৌসুমে দীর্ঘ তিন যাবৎ এ হ্রদটি পানি শুন্যতার ফলে শুকিয়ে যায়। যার ফলে জেলার ৬টি উপজেলার সাথে সকল ধরনের নৌযোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায় এবং কর্ণফুলী পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র (বিদ্যুৎ উৎপাদান) কমে যায়,তিন মাস মৎস্য আহরণ,পর্যটণ ভ্রমণ বন্ধ হয়ে যায় এবং কাঁচামাল সহ সকল ধরনের বাণিজ্য প্রায় বন্ধ থাকে।

বছরে তিন মাস পানি শূন্যতার ফলে ব্যবসায়ীদের কোটি-কোটি টাকার ক্ষতি সাধনের পাশা-পাশি সরকারও কোটি টাকার রাজস্ব আয় হতে বঞ্চিত হয়ে পরে।

উল্লেখ্য  ১৯৫৬ সালে কর্ণফুলী নদীর ওপর বাঁধ নির্মাণ করা হয়। এ হ্রদের আয়তন ২৯২ বর্গ মাইল,গভীরতা ১০০ফুট(৩০মিাটার) এবং সর্বাধিক গভীরতা ৪৯৫(১৫১ মিটার) বলে জানাযায়।

বছরের ফেব্রুয়ারী হতে এপ্রিল এ তিন মাস প্রচন্ড খড়তাপে লেকের পানি কমতে থাকে। যার ফলে এ লেকের ওপর নির্ভরশীল কয়েক লাখ লোক পানি না থাকার ফলে বেকারত্ব হয়ে পরে। এবং পানির জন্য অপেক্ষা করতে থাকে।

প্রতিবছর প্রবল বর্ষণের ফলে লেকের পানি কনায়-কানায় ভরে যায়। বর্তমানে ভারী বর্ষণ না হলেও থেকে থেমে বৃষ্ঠি হচ্ছে।

হ্রদের বাঁশ ব্যবসায়ী আবুল কাশেম বলেন,আমাদের সকল ধরনের ব্যবসা বাণিজ্য কাপ্তাই হ্রদের পানির ওপর নির্ভরশীল। পানি থাকতে ব্যবসা বাণিজ্য করে আমরা শান্তি পাই। দীর্ঘ তিন মাস যাবৎ পানি না থাকার কারনে আমাদের ব্যবসায় ধ্বস নেমেছে।

এদিকে কাপ্তাই ইঞ্জিন চালিত বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইদ্রিছ জানান, হ্রদে পানি কমে যাওয়ার ফলে আমাদের ব্যবসা নেই। আমরা তিন মাস যাবৎ বসে আছি। তবে থেমে থেমে বৃষ্ঠি হচ্ছে লেকে কিছু পরিমান পানি হয়ে অস্তে,অস্তে ভরাট হচ্ছে।

কাপ্তাই সাম্পান নৌকা চালক আলা উদ্দিন বলেন,লেকে পানি না থাকার ফলে আমরা কষ্টে আছি।সংসার আর চলছেনা। তবে আনন্দ হচ্ছে লেকে আস্তে,আস্তে পানি হতে দেখে। মুষলধারে বৃষ্ঠিপাত না হলে লেকে পানি হতে আরো সময় অপেক্ষা করতে হবে।

এদিকে অনেক অভিজ্ঞ ও নেটিজনেরা জানান, হ্রদের নভ্যতা ও পানি ধারণ ক্ষমতা কমে যওয়ার ফলে হ্রদ টি দিন-দিন শুকিয়ে যাচ্ছে। এটি সরকার ও হ্রদ কমিটি বৃহৎপরিসরে উদ্যোগ নিয়ে ড্রেজিং করা অত্যন্ত জরুরী প্রয়োজন বলে মত প্রকাশ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
2019 All rights reserved by |Dainik Donet Bangladesh| Design and Developed by- News 52 Bangla Team.
Theme Customized BY News52Bamg;a