1. [email protected] : 100010010 :
  2. [email protected] : admin :
  3. [email protected] : Helal Uddin : Helal Uddin
  4. [email protected] : Nadikur Rahman : Nadikur Rahman
  5. [email protected] : Priyanka Islam : Priyanka Islam
  6. [email protected] : sadmin :
বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ :
প্রধানমন্ত্রীর শুভ জন্মদিন উপলক্ষে মাদারীপুরে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল আখাউড়ায় ল্যাপটপ ও প্রজেক্টর বিতরণ হবিগঞ্জে একই পরিবারের ৩ জনের মৃত্যু যশোরের শার্শায় ১দিন বয়সের চুরি যাওয়া নবজাতক ঝিকরগাছা থেকে উদ্ধার কাপ্তাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে গণটিকা নিলেন প্রায় ৪ হাজার৯৮ জন যশোরের শার্শায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন পালিত ছাত্রলীগের নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন কাপ্তাইয়ে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন উপলক্ষে বাবুগঞ্জে আলোচনা সভা ও দোয়া মোনাজাত অবৈধপথে ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ বিজিবির হাতে ১১ জন আটক

ছাতা মেকার সোহাগের ব্যবসায় ধ্বস, সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন

প্রতিবেদকের নাম :
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১

কাপ্তাই প্রতিনিধি

রাঙ্গামাটি কাপ্তাইয়ে দীর্ঘ ৩০বছরের মধ্যে এ রকম ব্যবসায় ধ্বস নামেনি ছাতি মেকার সোহাগের। সংসার আর চলছেনা কোন দিন একশত টাকা হয় আবার হয়না। প্রায় দু’বছর যাবৎ হয়ে আসছে মহামারি করোনাভাইরাস ও বিভিন্ন ভাবে লকডাউনের ফলে ছাতা মেকার সোহাগের ব্যবসায় ধ্বস নামে।

ছাতা মেকার সোহাগ জানান,প্রায় ৪০ বছর আগে ভিটেমাটি হারা নোয়াখালী জেলার সেনবাগ হতে বাবা ছাতি মেকার মোস্তফা রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাইয়ে লগগেইট (কুড়ুম), পাহাড়ের নীচে এসে মাকে নিয়ে বসবাস শুরু করেন। ওখানে আমাদের ৬বোন ৩ ভাই জন্ম হয়। বাবা পুরাতন ফুঁটো-ফাটা ছাতা সেলাই, ভাঙা ছাতার রট বা ডাট লাগানো মেরামত করত কাপ্তাই নতুনবাজার মেসার্স মদিনা ফার্মেসি ও জনতা ব্যাংকের এক কোণে। যা আয় হত তা দিয়ে আমাদের সংসার চলত। বাবা আর অন্য কোন কাজ করতে জানতো না। একে একে আমরা ৬বোন ৩ ভাইয়ের জন্ম হয়। আমি সোহাগ সংসারের বড় ছেলে হওয়ার ফলে বাবা আমাকে তার সাথে করে বাজারে নিয়ে এসে খোলা জায়গায় নিজে কাজকরত আমাকেও ছাতা মেরামতের কাজ শিখাতো। বাবা আজ কয়েক বছর যাবৎ অসুস্থ বিছানায় শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে আছে। সংসারের হাল শেষমেশ আমাকে ধরতে হয়েছে। এর মধ্যে সকল বোনদের বিবাহ দিয়েছে আমিও বিবাহ করেছি।সংসারে আমার ২ছেলে আছে।

সোহাগ আরো জানান,দীর্ঘ ত্রিশ বছর যাবৎ ছাতি মেরামত করে সংসার পরিচালনা করছি দিনে বা বর্ষার মৌসুমে গড়ে হাজার ১২শত’টাকা আয় হত।তা দিয়ে সংসার ভালো চলত। ছয় মাস আয় করেছি আর ছয়মাস বাড়তি আয়ের টাকা দিয়ে সংসারের চালানো হত ।

সোহাগ জানান, ৩০ বছরের মধ্যে এরকম মন্দা ব্যবসা হয়নি। করোনা ভাইরাস আসার পর এবং লকডাউনের ফলে মানুুষ বাহির হয়না, কেউ ছাতি মেরামত করতে আসেনা। বাজারে এসে বসে থাকি আবার লকডাউনে বন্ধ থাকে। কখনও কেউ অতি প্রয়োজনে বাহিরে আসলে সে সুবাধে ভাঙ্গা ছাতা মেরামত করলে দিনে ১শত’টাকা পাই আবার কখনও পাইনা। এভাবে আর সংসার চলেনা।বহু কষ্টে সংসার চলছে।এখন কি করাবো কিছুই বুঝতে পারছিনা।

ছাতা মেকার সোহাগ সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
2019 All rights reserved by |Dainik Donet Bangladesh| Design and Developed by- News 52 Bangla Team.
Theme Customized BY News52Bamg;a